Advertisement
  • দে । শ প্রচ্ছদ রচনা
  • এপ্রিল ৯, ২০২৪

ওএমআর সিটের আসল তথ্য খুঁজতে হবে, নইলে ২০১৪ সালের টেটকে খারিজ করার হুঁশিয়ারি দিলেন বিচারপতি মান্থা

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
ওএমআর সিটের আসল তথ্য খুঁজতে হবে, নইলে ২০১৪ সালের টেটকে খারিজ করার হুঁশিয়ারি দিলেন বিচারপতি মান্থা

ওএমআর শিটের আসল তথ্য খুঁজতে হবে, নইলে পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়াই খারিজ করার হুঁশিয়ারি দিলেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা । মঙ্গলবার বিচারপতি বলেন, ‘ডিজিটাল তথ্য সহজে নষ্ট হয় না । মঙ্গলে গেলেও ডেটা পাওয়া সম্ভব । কিন্তু তারপরও যদি তথ্য হাতে না আসে, তবে গোটা নিয়োগ প্রক্রিয়াই বাতিল করতে বাধ্য হবে আদালত ।’

২০১৪ সালের টেটে পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগ করেন রাহুল চক্রবর্তী সহ কয়েকজন চাকরিপ্রার্থী । এই নিয়ে হাইকোর্টে দায়ের করা হয় একটি মামলাও । মামলাকারীদের অভিযোগ ২০১৪ সালের টেটের পরে ২০১৬ সালের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বেআইনি ভাবে শিক্ষক নিয়োগ হয়েছে । মঙ্গলবার সেই মামলারই শুনানি ছিল কলকাতা হাই কোর্টের বিচারপতি মান্থার বেঞ্চে ।

২০১৪ সালের টেটে পরীক্ষা দিয়েছিলেন কয়েক লক্ষ পরীক্ষার্থী । তার মধ্যে চাকরি পেয়েছিলেন ৬০ হাজার । ২০১৪ সালের টেট সংক্রান্ত মামলার তদন্তের দায়িত্বে রয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই । দুর্নীতির তদন্ত শুরু হলে আদালতকে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ জানিয়েছিল, ওএমআর শিটের ডিজিটাইজড ডাটা সংরক্ষণ করা হয়েছে । মঙ্গলবার বিচারপতি মান্থা সেই প্রসঙ্গই উল্লেখ করেছেন । বিচারপতি বলেন, ‘পর্ষদের দাবি সব ওএমআর শিট ডিজিটাইজড ডাটা হিসাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে । ২০১৯ সালে হেমন্ত চক্রবর্তী নামে এক পরীক্ষার্থীকে ওএমআরের প্রতিলিপি দেওয়া হয় । অর্থাৎ, ডিজিটাল ফুটপ্রিন্ট থাকার কথা। ’ ওই সব তথ্য সিবিআইকে খুঁজে দেখার কথা বলেন তিনি । এজন্য প্রয়োজনে পর্ষদ অফিসেও যেতে পারবে সিবিআই ।

প্রসঙ্গত, এর আগে প্রাথমিকের ওএমআর শিট সংক্রান্ত মামলাগুলির শুনানি হয় হাই কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে । তিনি ইস্তফা দেওয়ার পর মামলাগুলি যায় বিচারপতি মান্থার কাছে ।


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!