Advertisement
  • বৈষয়িক
  • ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২২

‘দুটি ভবনের ভাড়া বকেয়া’, প্রতিশোধের রাজনীতির শিকার হতে পারে কংগ্রেস ।

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
‘দুটি ভবনের ভাড়া বকেয়া’, প্রতিশোধের রাজনীতির শিকার হতে পারে কংগ্রেস ।

দিল্লির আকবর রোড এবং চাণক্যপুরীতে সরকার কংগ্রেসকে দুটি ভবন দিয়েছিল । ২০১৩ সাল থেকে ওই দুটি বাড়ির মাসিক ভাড়া বকেয়া পড়ে আছে ।
গুজরাটের সুরজিত প্যাটেলের প্রশ্নের জবাবে (আরটিআইয়ের আওতায়) কেন্দ্রীয় আবাসন এবং নগরায়ন মন্ত্রকের তরফে একথা জানানো হয়েছে । দিল্লির ২৬ আকবর রোডে সরকারি বাংলার মাসিক ভাড়া ১২.৬৯ লাখ টাকা। ২০১৩ সাল থেকেই তা বকেয়া। চাণক্যপুরীতে সোনিয়া গান্ধীর বাসভবনের মাসিক ভাড়া, ২০২০ সালের অক্টোবর থেকে মেটানো হয়নি। এই টাকার অঙ্ক বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫.০৭ লাখ।

নাম গোপন রাখার শর্তে কেন্দ্রের একজন আধিকারিক বলেছেন, ‘অনুমোদন ছাড়া বসবাসের জন্য দুটি ভবনের মাসিক ভাড়া বেড়েছে। কেউ যদি নির্দিষ্ট সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার পর ভাড়াটে হয়ে থাকেন, তাহলে ভাড়া আলাদাভাবে হিসাব করা হয়। যে পরিমাণ ভাড়া বকেয়া আছে, তা অনেকটাই বেশি। তবে কত টাকা বাকি পড়ে আছে, সে কথা ওই আধিকারিক জানান নি । আকবর রোডের টাইপ-৮ বাংলো ১৯৯৪ সালে সর্বভারতীয় কংগ্রেস কমিটিকে বরাদ্দ করা হয়েছিল। ১৯৮৫ সালে দেওয়া হয়েছিল চাণক্যপুরীর ভবন।

ওই আধিকারিক জানিয়েছেন, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর স্ত্রী হিসেবে সোনিয়াকে ১০ জনপথের বাংলো দেওয়া হয়েছিল। ওই বাংলোর মাসিক ভাড়া ৪,৬১০ টাকা।কেন্দ্রের উচ্ছেদ নোটিশের পর ২০২০ সালের জুলাইয়ে লোধি এস্টেটের বাংলো ছেড়ে ছিলেন সোনিয়ার মেয়ে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

সাধারণত দৈনন্দিন কাজকর্মের জন্য রাজনৈতিক দলগুলিকে বাংলো দেওয়া হয় । অফিস নির্মাণের জন্য কাউকে জমি দেওয়া হলে, সে জমি হাতে আসার তিন বছরের মধ্যে বাংলো ছেড়ে দিতে হয় । কংগ্রেস ২০১০ সালে জমি পেয়েছিল কিন্তু বাংলো ছাড়ে নি। কংগ্রেসের তরফে এ বিষয়ে মুখ খোলা হয়নি। তবে নাম গোপন রাখার শর্তে কংগ্রেসের এক শীর্ষ নেতা বলেছেন, ‘বাংলোগুলি ব্যবহারের মেয়াদ বাড়িয়েছিল সরকার। আমাদের নতুন ভবনের নির্মাণকাজ চলছে । করোনাভাইরাস মহামারীর জন্য কাজে দ্রুত গতিতে এগোতে পারেনি। প্রস্তাবিত ভবন তৈরি হয়ে গেলেই আমরা বাংলো ছেড়ে দেব। বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র আরপি সিং বলেছেন, সরকারি ভবনের জন্য কংগ্রেসকে অবশ্যই টাকা দিতে হবে ।’

বিষয়টি নিয়ে শাসকদল ও কংগ্রেসের মধ্যে তরজা সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। মাথা চাড়া দিতে পারে প্রতিশোধের রাজনীতি।


  • Tags:

Read by: 82 views

❤ Support Us
Advertisement
Advertisement
শিবভোলার দেশ শিবখোলা স | ফ | র | না | মা

শিবভোলার দেশ শিবখোলা

শিবখোলা পৌঁছলে শিলিগুড়ির অত কাছের কোন জায়গা বলে মনে হয় না।যেন অন্তবিহীন দূরত্ব পেরিয়ে একান্ত রেহাই পাবার পরিসর মিলে গেছে।

সৌরেনি আর তার সৌন্দর্যের সই টিংলিং চূড়া স | ফ | র | না | মা

সৌরেনি আর তার সৌন্দর্যের সই টিংলিং চূড়া

সৌরেনির উঁচু শিখর থেকে এক দিকে কার্শিয়াং আর উত্তরবঙ্গের সমতল দেখা যায়। অন্য প্রান্তে মাথা তুলে থাকে নেপালের শৈলমালা, বিশেষ করে অন্তুদারার পরিচিত চূড়া দেখা যায়।

মিরিক,পাইনের লিরিকাল সুমেন্দু সফরনামা
error: Content is protected !!