Advertisement
  • মা | ঠে-ম | য় | দা | নে
  • সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২৩

হেলায় সিরিজ জয় ভারতের, টিম ম্যানেজমেন্টের কাজ কঠিন করে দিলেন শ্রেয়স, সূর্যরা

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
হেলায় সিরিজ জয় ভারতের, টিম ম্যানেজমেন্টের কাজ কঠিন করে দিলেন শ্রেয়স, সূর্যরা

বিশ্বকাপের আগে ভারত–অস্ট্রেলিয়ার কাছে এটাই শেষ প্রস্তুতি সিরিজ। সিরিজের পরেই দুটি ওয়ার্ম আপ ম্যাচ খেলেই নেমে পড়তে হবে বিশ্বকাপ অভিযানে। ফলে যাবতীয় পরীক্ষা–নিরীক্ষা সেরে ফেলতে হবে এই সিরিজেই। এক ম্যাচ বাকি থাকতেই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজ জিতে ভারত বুঝিয়ে দিল, বিশ্বকাপের জন্য তারা তৈরি। তবে চিন্তা বাড়ল ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের। প্রথম একাদশ বেছে নেওয়ার কাজ কঠিন করে দিয়েছেন লোকেশ রাহুল, শ্রেয়স আয়ার, ঈশান কিষাণ, সূর্যকুমার যাদবরা।
এশিয়া কাপে রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, শুভমান গিল, ঈশান কিষাণরা রান পেয়েছিলেন। চোটের জন্য শ্রেয়স আয়ার দুটি ম্যাচে খেলতে পারেননি। সূর্যকুমার যাদবও সেভাবে সুযোগ পাননি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজে ভারতীয় টিম ম্যানেজমনেন্ট শ্রেয়স আয়ার ও সূর্যকুমার যাদবদের দেখে নিতে চেয়েছিল। এই দুই ব্যাটার যে ইনিংস খেললেন, অজিত আগরকার, রাহুল দ্রাবিড়, রোহিত শর্মাদের চিন্তায় ফেলে দিয়েছেন। অন্যদিকে, দুটি ম্যাচে রবিচন্দ্রন অশ্বিন যে বোলিং করেছেন, তাতে এই অফস্পিনারকে বাইরে রেখে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত ১৫ জন বেছে নেওয়া কঠিন হয়ে যাবে।
ইন্দোরের হোলকার স্টেডিয়ামে শ্রেয়স আয়ারের কাছে ছিল বড় পরীক্ষা। মোহালিতে শুভমান গিলের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান পাননি। রবিবার ইন্দোরে দুর্দান্ত ইনিংস খেলে বিশ্বকাপে ৪ নম্বর জায়গা পাকা করে ফেললেন। তাঁর ও শুভমান গিলের জুটিতে তোলা ২০০ রান ভারতের বড় ইনিংসের প্ল্যাটফর্ম গড়ে দিয়েছিল। দুরন্ত ইনিংস খেলেন শ্রেয়স। ৯০ বলের ১০৫ রানের ইনিংসে রয়েছে ১১টা ৪ ও ৩টে ৬। আর শুভমান গিল সম্পর্কে যতই বলা হোক, কম বলা হবে। এই বছরে পাঁচটি একদিনের আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি হয়ে গেল। ৯৭ বলে করেন ১০৪।
লোকেশ রাহুল ৩৮ বলে ৫২ রান করে আউট হব। ১৮ বলে ৩১ রান করেন ঈশান কিষাণ। তবে এদিন সবথেকে বেশি চমক দিয়েছেন সূর্যকুমার যাদব। ক্রিজে নেমেই ঝড় তোলেন। ২৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি। এর মধ্যে ক্যামেরন গ্রিনকে এক ওভারে পরপর ৪টি ছয়। শেষ পর্যন্ত ৩৭ বলে ৭২ রান করে অপরাজিত থাকেন সূর্য। এই ইনিংসের পর তাঁকে প্রথম একাদশের বাইরে বসিয়ে রাখাটা কঠিন হয়ে যাবে টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে। সূর্যদের দাপটেই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে রেকর্ড রান ভারতের। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেটে ৩৯৯।
জয়ের জন্য ৪০০ রানের বিশাল টার্গেট সামনে নিয়ে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে পরপর দুটি উইকেট তুলে নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে চাপে ফেলে দেন প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ। ফেরান ম্যাথু শর্ট (‌৯)‌ ও স্টিভ স্মিথকে (‌০)‌। ৯ রানে ২ উইকেট হারানোর পর ৮০ রানের পার্টনারশিপ গড়েন ডেভিড ওয়ার্নার ও মার্নাস লাবুশেন। ৯ ওভার শেষে বৃষ্টি নামে। খেলা বেশ কিছুক্ষণ বন্ধ ছিল। সেই সময় অস্ট্রেলিয়ার রান ছিল ৫৬/‌২। এরপর ডাকোয়ার্থ–লুইস নিয়মে অস্ট্রেলিয়ার টার্গেট দাঁড়ায় ৩৩ ওভারে ৩১৭।
এরপর রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজা অস্ট্রেলিয়াকে কোণঠাসা করে দেন। ত্রয়োদশ ওভারের প্রথম ও তৃতীয় বলে রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে সামলাতে ডান হাতে ব্যাটিং করেন ডেভিড ওয়ার্নার। প্রথম বলে ১ রান নেন, তৃতীয় বলে চার মারেন। যদিও পঞ্চদশ ওভারে ফের ডান হাতে ব্যাটিং করে রিভার্স স্যুইপ মারতে গিয়ে লেগ বিফোর হন ওয়ার্নার (‌৩৯ বলে ৫৩)‌। তার আগেই লাবুশেনকে (‌২৭)‌ তুলে নিয়েছিলেন অশ্বিন। জশ ইংলিসও (‌৬) অশ্বিনের শিকার। অ্যালেক্স ক্যারি (১৪) ও অ্যাডাম জাম্পাকে (৫) ফেরান রবীন্দ্র জাদেজা। ১৩ বলে ১৯ রান করে রান আউট হন ক্যামেরন গ্রিন। নিশ্চিত পরাজয়ের মুখে দাঁড়িয়ে ঝোড়ো ব্যাটিং করেন শন অ্যাবট (‌৩৬ বলে ৫৪)‌ ও জশ হ্যাজেলউড (‌১৬ বলে ২৩)। ২৮.২ ওভারে ২১৭ রানে গুটিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। অশ্বিন ৭ ওভারে ৪১ ও জাদেজা ৫.২ ওভারে ৪২ রান খরচ করে তিনটি করে উইকেট নেন। প্রসিদ্ধ ৬ ওভারে ৫৬ রান দিয়ে ২টি ও মহম্মদ শামি ৬ ওভারে ৩৯ রান খরচ করে ১ উইকেট নেন।


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!