Advertisement
  • এই মুহূর্তে বি। দে । শ
  • এপ্রিল ২, ২০২৪

সিরিয়ায় ইরানের দূতবাসের ওপর ইজরায়েলের ক্ষেপনাস্ত্র হামলা, দুই কমান্ডারসহ নিহত ১১

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
সিরিয়ায় ইরানের দূতবাসের ওপর ইজরায়েলের ক্ষেপনাস্ত্র হামলা, দুই কমান্ডারসহ নিহত ১১

সিরিয়ার দামাস্কাসে ইরান দূতাবাসের ওপর ইজরায়েলের অতর্কিত বিমান হামলায় দুজন শীর্ষ সামরিক কমান্ডারসহ ১১ জন নিহত হয়েছেন। সিরিয়ায় ইরানের রাষ্ট্রদূত হোসেন আকবরি অবশ্য দাবি করেছেন, ১১ জন নয়, বিমান হামলায় ৫ জন নিহত হয়েছেন। নিহতরা প্রত্যেই বিপ্লবী গার্ডের সদস্য ছিলেন।

সোমবার ইরান দূতাবাসের অ্যানেক্স ভবন লক্ষ্য করে ইজরায়েলি সেনা এফ–৩৫ বিমান থেকে ৬টি ক্ষেপনাস্ত্র ছোঁড়ে। ক্ষেপনাস্ত্রের আঘাতে ভবনটি সম্পূর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়। হামলায় ইরানের দূতাবাসের অ্যানেক্স ভবন ধ্বংসস্তুপে পরিণত হলেও প্রধান দূতাবাস ভবন অক্ষত রয়েছে। ইরানি রাষ্ট্রদূতের বাসভবন প্রধান দূতাবাসের ভেতরেই অবস্থিত।

এই বিমান হামলায় বিপ্লবী গার্ডের দুই শীর্ষ কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মহম্মদ রেজা জাহেদি ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মহম্মদ হাদি হাজি রাহিমি নিহত হয়েছেন। রেজা জাহেদি ২০১৬ সাল পর্যন্ত লেবানন এবং সিরিয়ায় এলিট কুর্দস ফোর্সের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। হামলায় হিজবুল্লাহ জঙ্গি গোষ্ঠীর এক সদস্য হুসেন ইউসুফও নিহত হয়েছেন। হিজবুল্লাহর পক্ষ থেকে অবশ্য মৃত্যুর করা স্বীকার করা হয়নি। তবে জাহেদির মৃত্যুর জন্য ইরানের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছে।

সিরিয়ায় ইরানের দূতাবাসের ওপর ইজরায়েলের এই বিমান হামলা প্রমান করে যে, গাজায় যুদ্ধরত ও লেবানন সীমান্তে জঙ্গিগোষ্ঠীকে ইরানের সমর্থন তারা ভালভাবে নেয়নি। গাজায় যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে ইজরায়েল ও লেবাননে অবস্থিত ইরানের মদতপুষ্ট হিজবুল্লাহ জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষ বেড়েছে। ইজরায়েল অবশ্য এই হামলার ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করতে চায়নি। ইজরায়েলের এক সামরিক মুখপাত্র সোমবার ভোরে দক্ষিণ ইজরায়েলের একটা নৌ ঘাঁটির ওপর ড্রোন হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করেছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, ইরান যে সিরিয়ায় দূতাবাসের ওপর হামলার প্রতিশোধ নেবে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই।


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!