Advertisement
  • দে । শ
  • সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২৩

খুন হওয়া খালিস্তানি সন্ত্রাসী নিজ্জার ভারতে হামলার নির্দেশ দিয়েছিল, খবরে প্রকাশ

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
খুন হওয়া খালিস্তানি সন্ত্রাসী নিজ্জার ভারতে হামলার নির্দেশ দিয়েছিল, খবরে প্রকাশ

নিহত খালিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদী হরদীপ সিং নিজ্জার, ভারতের একজন কুখ্যাত সন্ত্রাসবাদী ,১৯৮০ -র দশক থেকে সে অপরাধের সাথে জড়িত বলে অভিযোগ করা হয়েছিল এবং অল্প বয়স থেকেই স্থানীয় গুন্ডাদের সাথে তার সংযোগ ছিল, ভারতীয় কর্তৃপক্ষের দ্বারা প্রস্তুত একটি বিশদ দলিলে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ওই তথ্যে আরও বলেছে যে নিজ্জার, ১৯৯৬ সালে একটি জাল পাসপোর্ট নিয়ে কানাডায় পালিয়ে গিয়েছিলেন এবং সেখানে ট্রাক ড্রাইভার হিসাবে লো-প্রোফাইল বজায় রেখেছিলেন, তিনি অস্ত্র ও বিস্ফোরক সংক্রান্ত প্রশিক্ষণের জন্য পাকিস্তানে গিয়েছিলেন। কানাডার মাটিতে আশ্রয় নেওয়ার সময় তিনি পাঞ্জাবে বেশ কয়েকটি হত্যা ও হামলার নির্দেশও দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

নিজ্জার সম্পর্কে ভারতের ওই দলিলে বলা হয়েছে, পাঞ্জাবের জলন্ধরের ভর সিং পুরা গ্রামের বাসিন্দা, হরদীপ সিং নিজ্জারকে গুরনেক সিং ওরফে নেকা গ্যাংস্টার জীবনে এনেছিলেন। ১৯৮০ এবং ৯০-এর দশকে, তিনি খালিস্তান কমান্ডো ফোর্স বা কেসিএফ জঙ্গিদের সাথে যুক্ত ছিলেন এবং পরবর্তীতে ২০১২ সাল থেকে তিনি খালিস্তান টাইগার ফোর্স বা কেটিএফ প্রধান জগতার সিং তারার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ছিলেন। বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী মামলায় তার নাম উঠে আসার পর, নিজ্জার ১৯৯৬ সালে কানাডায় পালিয়ে যান।

পরে তিনি পাকিস্তান ভিত্তিক কেটিএফ প্রধান জগতার সিং তারার সংস্পর্শে আসেন বলে অভিযোগ। তিনি এপ্রিল ২০১২ সালে বৈশাখী জাঠের সদস্যের পোশাকে পাকিস্তান সফর করেছিলেন এবং সেখানে এক পক্ষ সময় ধরে অস্ত্র ও বিস্ফোরক প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন বলে ভারতের ওই দলিলে বলা হয়েছে।

কানাডায় ফিরে আসার পর, নিজ্জার  কানাডায় মাদক ও অস্ত্র চোরাচালানে জড়িত তাঁর সহযোগীদের মাধ্যমে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জন্য তহবিলের ব্যবস্থা করতে শুরু করেছিলেন বলে অভিযোগ।

নিজ্জার জগতার সিং তারার সাথে পাঞ্জাবে একটি সন্ত্রাসী হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিলেন এবং কানাডায় একটি গ্যাং তৈরি করেছিলেন যার মধ্যে মনদীপ সিং ধালিওয়াল, সর্বজিৎ সিং, অনুপবীর সিং এবং দর্শন সিং ওরফে ফৌজি অন্তর্ভুক্ত ছিল বলে ভারতীয় ওই দলিলে দাবি করা হয়েছে, ওই দলিলে বলা হয়েছে,  যে তারা ব্রিটিশ কলাম্বিয়াতে অস্ত্র প্রশিক্ষণ পেয়েছে, ডিসেম্বর ২০১৫ সালে কানাডায়।

ওই দলিলে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৪  সালে নিজ্জার হরিয়ানার সিরসার ডেরা সাচ্চা সৌদা সদর দফতরে সন্ত্রাসী হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিলেন, কিন্তু তিনি ভারতে পৌঁছাতে পারেননি, তাই তিনি তার মডিউলটিকে প্রাক্তন ডিজিপি মোহাম্মাদ ইজহার আলম, পাঞ্জাব ভিত্তিক শিবসেনা নেতা নিশান্ত শর্মাএবং বাবা মান সিং পেহোয়া ওয়ালেকে নিশানা করার নির্দেশ দিয়েছেন।।

নিজ্জার পাঞ্জাব-ভিত্তিক গ্যাংস্টার আরশদীপ সিং গিল ওরফে আরশ দালার সাথে মোগা থেকে পাঞ্জাবে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালানোর জন্যও কাজ করেছিল, এমনটাই ওই দলিলে বলা হয়েছে। তিনি ২০২০ সালে মনোহর লাল অরোরা এবং যতিন্দরবীর সিং অরোরা, পিতা-পুত্র যুগলকে ‘পন্থী-বিরোধী কার্যকলাপের’ দায়ে অভিযুক্ত পিতা-পুত্রকে দ্বৈত-হত্যা চালানোর দায়িত্ব দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। হামলায় মনোহর লালকে তার বাসভবনে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল ২০ নভেম্বর ২০২০ তারিখে বাথিন্ডায়, কিন্তু তার ছেলে পালিয়ে যায়। নিজ্জার তাদের হত্যার জন্য কানাডা থেকে অর্থ পাঠিয়েছিল, বলে ভারতীয় ওই দলিলে বলা হয়েছে।

২০২১ সালে, নিজ্জার কথিতভাবে আরশদীপকে ভার সিং পুর গ্রামের  পুরোহিতকে হত্যা করতে বলেছিলেন। তবে পুরোহিত সে যাত্রায় বেঁচে যান। নিজ্জার, এই পদ্ধতিতে কানাডা থেকে পর্দার আড়ালে থেকে পাঞ্জাবে সন্ত্রাসের একটি বাস্তুতন্ত্র তৈরি করেছে বলে অভিযোগ।

১৮ জুন কানাডার সারে, ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার একটি পার্কিং এলাকায় একটি গুরুদ্বারের বাইরে গুলি করে হত্যা করা হয় নিজ্জারকে। এর পরেই কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো তাঁর বিস্ফোরক অভিযোগ দ্বিগুণ করে বলেছেন যে “ভারতীয় সরকারী এজেন্ট” হরদীপ সিং নিজার হত্যার পিছনে ছিল। ট্রুডো সোমবার প্রথম নিজ্জার হত্যাকাণ্ডকে ভারতের সাথে যুক্ত করেছিলেন, ভারত দ্রুত এবং কঠোরভাবে ট্রুডোর এই অভিযোগ অস্বীকার করেছিল। কানাডা তার অভিযোগের বিষয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে পারেননি বলে ভারতের তরফে দাবি করা হয়েছে।  এর পরেই উভয় দেশের কূটনীতিকদের নিজস্ব দেশে ফিরিয়ে দেওয়া হয় এবং উভয় দেশের মধ্যে ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!