Advertisement
  • দে । শ
  • সেপ্টেম্বর ৬, ২০২৩

৮ সেপ্টেম্বর, দিল্লিতে মমতা মোদি বৈঠক। পরদিন বাংলার জনমুখী দিদির সঙ্গে ওপারের বড়োবোনের দেখা হবে, কথাও হবে

হাসিনার দিল্লি সফরে প্রাপ্তি যোগের বিস্তর সম্ভাবনা

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
৮ সেপ্টেম্বর, দিল্লিতে মমতা মোদি বৈঠক। পরদিন বাংলার জনমুখী দিদির সঙ্গে ওপারের বড়োবোনের দেখা হবে, কথাও হবে

ফাইল চিত্র

৮ সেপ্টেম্বর ভারতে আসছেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । সেদিনই দিল্লিতে তাঁর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন নরেন্দ্র মোদি । বাংলাদেশ থেকে বিভিন্নসূত্র এবং ঢাকার বিদেশমন্ত্রক খবরটি নিশ্চিত করে বলেছে, দু দেশের প্রধানমন্ত্রী একে অন্যের সঙ্গে একান্তে কথা বলতে চান । ভারতের বিদেশ দফতরও এ প্রস্তাবে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ।

মোদি জামানায় বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক আগের চেয়ে বহুগুণ বেশি নিবিড় হয়েছে । বাণিজ্যিক লেনদেন বেড়েছে । বেড়েছে ভারতের রেমিটেন্স । একমাত্র আমেরিকা ছাড়া অন্য কোনো দেশ এত পরিমাণ আয় সরবারহ করে না । দুই দেশের সম্পর্ককে বহুবার ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ‘সোনালী হৃদ্যতা’ বলে আখ্যায়িত করেছেন । শেখ হাসিনার আমলে বাংলাদেশের উন্নয়ন সূচির প্রশংসা করেছেন । দিল্লির ধারণা, এ সম্পর্ক অব্যাহত থাকলে ভারতের সীমান্ত ছোঁওয়া বিভিন্ন রাজ্যে শান্তি বজায় থাকবে । কিছু কিছু সান্ত্রস ক্রমশ কমে আসবে ।

বাংলাদেশকে ভারতের যেমন প্রয়োজন, তেমনিও ঢাকারও ভারতকে দরকার । শেখ হাসিনার আমলে গভীর সমুদ্র ব্যবহারের অনুমতি ভারতীয় পরিবহন চলাচলের সুযোগ দিয়েছে ঢাকা । কয়েকটি সমস্যা অবশ্য ঝুলছে, যেমন তিস্তার জল বন্টন, বাংলাদেশে অপরাধ করে দুর্বৃত্তদের ভারতে চলে এসে পরিচয় ও নাম বহলে বাংলাদেশ বিরোধী কার্যকলাপ চালিয়ে যাওয়া, সীমান্তে হত্যা ইত্যাদি । হাসিনা মোদি বৈঠকে এরকম নানা বিষয়ে আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা বিস্তর । ৮ সেপ্টেম্বরের বৈঠক হবে, খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদির বাসভবনে । এখবর নিশ্চিত, তবে সময় এখনো ঠিক হয়নি । আবার প্রশাসক হিসেবে তাঁর দৃঢ়তা, তাঁর প্রশ্নহীন দেশপ্রেম, উন্নয়নের দুর্ভেদ্য সঙ্কল্পের জন্য বিশ্বজুড়ে ব্যতিক্রম তাঁর সমূহ পরিচিতি । আসন্ন জাতীয় ভোটে এসব বিষয়কে অব্যশ্যই ইস্যু করবেন, ভোটে অন্য কোনো দেশের হস্তক্ষেপকে বিলকুল বরদাস্ত করবেন না । বাংলাদেশের ভবিষ্যত দেশের জনগণ ঠিক করবে । ইউরোপীয় ইউনিয়নও আমেরিকার পরোক্ষ দাদাগিরির সামনে মাথা নত করার মতো কৌশলাবলম্বী নন । দিন কয়েক পরেই ঢাকা সফর করেবেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন । উনি ওঁর দূঢ়তায় মুগ্ধ । মুগ্ধ তাঁর সঙ্কল্পের অভিমুখ দেখে । আমেরিকাও বুঝতে পেরেছে, প্রাক একাত্তর কিংবা একাত্তর উত্তর সময়ে বঙ্গবন্ধু যেমন মার্কিন নীতির তোয়াক্কা করেননি, মুজিব কন্যাও তেমনি বিদেশ নীতির ধারাবাহিক নির্মাণে, জাতীয় ভাবাবেগকে কখনো বিঁকিয়ে দিতে চাননি । ভারত তাঁর পাশে ছিল সর্বদা, একথা ভোলেননি । দিল্লিতে যখন যে ক্ষমতায় এসেছেন, বাংলাদেশের আপসহীন জাতিসত্তাকে মর্যাদা দেওয়াকে শর্তহীন বন্ধুত্বের আসনে বসিয়েছেন, মোদিও তাঁদের একজন । প্রতিবেশী দুই প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন বৈঠকের দিকে তাকিয়ে আছে বিশ্ব ।

ভারতের অঙ্গরাজ্যের সর্বোচ্চ প্রশাসক মমতা বন্দোপাধ্যায় জি ২০-র নৈশ ভোজে যোগ দেবেন । তাঁর সঙ্গে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেখা হবে, কথাও হতে পারে । হাসিনা মমতায় মুগ্ধ । মমতার কল্যানমুখী, জনমুখী আর সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী রাজনীতি হাসিনাকে যেমন আকৃষ্ট করে রেছেছে, ঠিক তেমনি হাসিনার মমতাময়তায় মোহিত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী । সম্পর্কের নবায়ন শুধু নয়, অন্য কোনো সামাজিক প্রাপ্তির সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না ।


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!