Advertisement
  • প্রচ্ছদ রচনা
  • ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২২

৪ পুরনিগমে ভোটগ্রহণ শুরু। ইতিমধ্যেই ছড়িয়েছে উত্তেজনা— কোথাও হাতাহাতি কোথাও আবার ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ…

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
৪ পুরনিগমে ভোটগ্রহণ শুরু। ইতিমধ্যেই ছড়িয়েছে উত্তেজনা— কোথাও হাতাহাতি কোথাও আবার ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ…

বিধাননগরের ৪১টি, চন্দননগরের ৩২টি, শিলিগুড়ির ৪৭টি এবং আসানসোলের ১০৬টি ওয়ার্ডের বাসিন্দারা সকাল থেকেই ভোট দিতে বুথে বুথে জড়ো হয়েছেন। করোনা সতর্কতা মেনেই নিজেদের কাউন্সিলর বেছে নিতে গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করছেন ভোটাররা। সকাল ৭টা থেকে কড়া নিরাপত্তায় শুরু হয়েছে ভোট। সকাল ৯টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণের হার শিলিগুড়ি ১২.৭১ শতাংশ, চন্দননগর ১১.৮১ শতাংশ, বিধাননগর ১৩.৬৪ শতাংশ, আসানসোলে ১৩.৫৭ শতাংশ।

স্রেফ ৯ হাজার পুলিসকর্মীই নন, চার পুরনিগমের দায়িত্ব থাকছেন অতিরিক্ত ৪ আইপিএস অফিসারও। বিধাননগরের বিশেষ দায়িত্বে জ্ঞানবন্ত সিং। শিলিগুড়ির দায়িত্বে আইজি উত্তরবঙ্গ ডিপি সিং। আসানসোল এবং চন্দননগরের দায়িত্বে যথাক্রমে এডিজি পশ্চিমাঞ্চল সঞ্জয় সিং এবং আইজি বাঁকুড়া রেঞ্জ সুনীল চৌধুরি। বিধাননগরে পুরনিগমে বুথের সংখ্যা ৫২৩ । চন্দননগরে ১৭৬। আসানসোল এবং শিলিগুড়িতে বুথের সংখ্যা যথাক্রমে ১১৮২ ও ৫০২। বিধাননগরে ভোট দেবেন ৪ লক্ষ ৪৬ হাজার ৭৪০ জন। চন্দননগরে ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৪৪ হাজার ৮৩৯। আসানসোলে প্রার্থীদের ভাগ্য নির্ধারণ করবেন ৯ লক্ষ ৪২ হাজার ৯০ জন এবং শিলিগুড়িতে ৪ লক্ষ ২ হাজার ৮৯৫ জন।

ইতিমধ্যেই উত্তেজনা ছড়িয়েছে বিধাননগরের ৩৭ নম্বর ওয়ার্ডে । বুথের ভিতর দুই প্রার্থীর মধ্যে হাতাহাতি খবর মিলেছে । তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার অভিযোগ বিজেপি, সিপিএম-এর। অভিযোগ অস্বীকার শাসক দলের। আসানসোল পুরনিগমের ৫১ নম্বর ওয়ার্ডের চেলিডাঙ্গা হাইস্কুলের বুথের ভিতরে তৃণমূল কংগ্রেসের স্টিকার লাগানো পুলিসের গাড়ি ঢোকার অভিযোগ উঠেছে । পরে জল দিয়ে সেই স্টিকার মুছে ফেলে গাড়ির চালক। সম্ভবত ভোটের ডিউটিতে আসা পুলিশ কর্মীরা ওই গাড়ি নিয়ে গিয়েছে বলে অনুমান স্থানীয়দের।

আসানসোল বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পলের বাড়ির সামনে পুলিস মোতায়েনের অভিযোগ। বিধায়কের অভিযোগ, তাঁর গতিবিধি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে ঘুরতে দেওয়া হচ্ছে না। বরং রাজ্য পুলিসের সশস্ত্র বাহিনী নিয়ে ঘুরতে বলা হচ্ছে।আসানসোলের ২৭ নং ওয়ার্ডে হামলার মুখে সস্ত্রীক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। ‘গো ব্যাক’ স্লোগান উঠল তাঁকে ঘিরে। তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ। পালটা বিজেপি বিধায়কের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ তুলছে তৃণমূল। বিধাননগরের ৩৭ নং ওয়ার্ডে বিজেপি-তৃণমূল প্রার্থীদের মধ্যে বচসা, হাতাহাতি। বুথে দাঁড়িয়েই বিধাননগরের পুলিশ কমিশনারকে ফোনে নালিশ জানালেন বিজেপি প্রার্থী।

 


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!