Advertisement
  • দে । শ প্রচ্ছদ রচনা
  • নভেম্বর ২০, ২০২৩

নবম এবং মাধ্যমিকস্তরের সমস্ত বই নতুন করে প্রকাশের সিদ্ধান্ত পর্ষদের

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
নবম এবং মাধ্যমিকস্তরের সমস্ত বই নতুন করে প্রকাশের সিদ্ধান্ত পর্ষদের

সরকারি এবং সরকার পোষিত বিদ্যালয়গুলিতে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত বিনামূল্যে সমস্ত পাঠ্য বই দিয়ে থাকে রাজ্য সরকার। কিন্তু নবম শ্রেণি এবং দশম শ্রেণির পড়ুয়াদের অর্থাৎ মাধ্যমিকের পড়ুয়াদের শুধুমাত্র বাংলা, ইংরেজি এবং গণিত বই পর্ষদের তরফ থেকে দেওয়া হয়।

সম্প্রতি শোনা যাচ্ছিল জাতীয় শিক্ষানীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মাধ্যমিকের সিলেবাস বদলাচ্ছে। তবে পর্ষদের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে বর্তমানে মাধ্যমিকের সিলেবাসে কোনরকম পরিবর্তন করা হচ্ছে না। পর্ষদের তরফ থেকে জানানো হয়েছে নবম এবং দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের অর্থাৎ মাধ্যমিকের বইগুলো নতুন করে প্রকাশিত হবে।

ইতিমধ্যে মাধ্যমিক শিক্ষা পর্ষদ নবম এবং দশম শ্রেণির বই প্রকাশকদের পুরনো বই পরিমার্জনার নির্দেশ দিয়েছে এবং নতুন টেক্সটবুক নাম্বার অর্থাৎ টিবি নাম্বার পর্ষদের তরফ থেকে প্রকাশকদের দেওয়া হয়েছে। পর্ষদের তরফ থেকে বিভিন্ন প্রকাশনীর ১৫০ টি বই পরিমার্জনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই মাসেই ১০০ টি বই পরিমার্জনার কাজ শেষ হবে বলে জানানো হয়েছে এবং যেসকল প্রকাশনীর বই পরিমার্জনার কাজ শেষ হবে সেগুলিকে টেক্সটবুক নাম্বার অর্থাৎ টিবি নাম্বার দেওয়া হবে।

সরকার এবং সরকার পোষিত বিদ্যালয়গুলিতে নবম এবং দশম  শ্রেণির শুধুমাত্র বাংলা ইংরেজি এবং গণিত বই দেওয়া হয় বাকি বইগুলি অর্থাৎ ইতিহাস, ভূগোল, জীবন বিজ্ঞান ও ভৌতবিজ্ঞান বইগুলি ছাত্রছাত্রীদের কিনতে হয়, এই বইগুলি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা প্রকাশ করে। পর্ষদের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ২০১৭ সালের পর থেকে এই বইগুলি রিভিউ করা হয়নি। তাই এই বইগুলিকে ঘিরে নানান বিতর্ক রয়েছে। সেই কারণেই বইগুলি পরিমার্জন করার কাজ শুরু হয়েছে।

বিভিন্ন ক্ষেত্রে স্কুলের ইন্টারনাল এবং টেস্ট পরীক্ষার ক্ষেত্রে বিভিন্ন বিতর্ক ধর্মী প্রশ্ন কিংবা ভুল তথ্যর জন্য বিভ্রান্তি আগে হয়েছে, তাই পর্ষদ এই  সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নবম এবং দশম শ্রেণির এই বইগুলিকে ঘিরে বিতর্ক দূর করার জন্য পর্ষদের তরফ থেকে বই প্রকাশনী সংস্থাগুলিকে পুনরাই মুদ্রণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


  • Tags:
❤ Support Us
error: Content is protected !!