Advertisement
  • এই মুহূর্তে ন | গ | র | কা | হ | ন
  • জানুয়ারি ১২, ২০২৪

নির্বাচন কমিশনারের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় নেই কেন প্রধান বিচারপতি? কেন্দ্রের কৈফিয়ত তলব আদালতের

আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক
নির্বাচন কমিশনারের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় নেই কেন প্রধান বিচারপতি? কেন্দ্রের কৈফিয়ত তলব আদালতের

ভারতের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগ প্রক্রিয়া সংক্রান্ত আইনে কেন প্রধান বিচারপতিকে বাদ দেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে ব্যাখ্যা তলব করল সুপ্রিম কোর্ট।

কেন্দ্রের পাশ করানো এই আইনে কোনও স্থগিতাদেশ সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ এখনও জারি করেনি। বিতর্কিত বিলটি নিয়ে শুরু থেকেই বিরোধীরা প্রতিবাদে সরব ছিলেন। শেষ পর্যন্ত সংসদের উভয় কক্ষেই সংখ্যাধিক্যের জোরে বিলটি পাস হয়ে যায়। রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের পর তা আইনে পরিণত হয়েছে। বিরোধীদের অভিযোগ, এই আইনে দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের প্রক্রিয়া থেকে প্রধান বিচারপতিকে দূরে রাখলে সে নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ হবে না।

২০২৩-এর মার্চ মাসে এক ঐতিহাসিক রায়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছিল, দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগের ক্ষমতা একচ্ছত্রভাবে মন্ত্রিসভার হাতে থাকবে না। এদের নিয়োগ করবে প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলনেতা এবং প্রধান বিচারপতির যৌথ কমিটি। কমিটির সুপারিশ মেনেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগ করবেন। যদি কখনও লোকসভায় বিরোধী দলনেতা পদে কেউ না থাকেন, তাহলে বৃহত্তম বিরোধী দলের নেতাকেই কমিটিতে নেওয়া হবে। এর পর নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের অধিকার ন্যস্ত হয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী আর প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের কমিটির উপর। সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে পালটা আইন এনে সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে পঙ্গু করে দেয় কেন্দ্র। এই আইনের জোরে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার (সংশোধনী) বিল পাস হয়। তখনই পরিষ্কার হয়ে যায়, মুখ্য নির্বাচন কমিশনারকে নিয়োগ করবেন প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলনেতা এবং প্রধানমন্ত্রীর সুপারিশ অনুযায়ী মন্ত্রিসভার একজন সদস্য।

আইনটির বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে একাধিক জনস্বার্থ মামলা করা হয়। কংগ্রেস নেত্রী জয়া ঠাকুরের মামলায় দাবি করা হয়, এ আইন বিচারবিভাগের ক্ষমতায় হস্তক্ষেপ। স্থগিতাদেশ দেওয়া হোক। বিচারপতি সঞ্জীব খান্না, বিচারপতি দীপঙ্কর দত্তর ডিভিশন বেঞ্চ স্থগিতাদেশ জারি করতে অস্বিকার করলেও আইনের ব্যাখ্যা তলব করে কেন্দ্রকে নোটিস  পাঠায়ে। এখন দেখতে হবে কেন্দ্র কী জবাব দেয়?


  • Tags:

Read by:

❤ Support Us
Advertisement
homepage block Mainul Hassan and Laxman Seth
Advertisement
homepage block Mainul Hassan and Laxman Seth
Advertisement
শিবভোলার দেশ শিবখোলা স | ফ | র | না | মা

শিবভোলার দেশ শিবখোলা

শিবখোলা পৌঁছলে শিলিগুড়ির অত কাছের কোন জায়গা বলে মনে হয় না।যেন অন্তবিহীন দূরত্ব পেরিয়ে একান্ত রেহাই পাবার পরিসর মিলে গেছে।

সৌরেনি আর তার সৌন্দর্যের সই টিংলিং চূড়া স | ফ | র | না | মা

সৌরেনি আর তার সৌন্দর্যের সই টিংলিং চূড়া

সৌরেনির উঁচু শিখর থেকে এক দিকে কার্শিয়াং আর উত্তরবঙ্গের সমতল দেখা যায়। অন্য প্রান্তে মাথা তুলে থাকে নেপালের শৈলমালা, বিশেষ করে অন্তুদারার পরিচিত চূড়া দেখা যায়।

মিরিক,পাইনের লিরিকাল সুমেন্দু সফরনামা
error: Content is protected !!