Advertisement
  • স | ফ | র | না | মা
  • এপ্রিল ২৩, ২০১৯

সৌরেনি আর তার সৌন্দর্যের সই টিংলিং চূড়া

অমিত মুখোপাধ্যায়
সৌরেনি আর তার সৌন্দর্যের সই টিংলিং চূড়া

সৌরেনির উঁচু শিখর ।

সৌরেনি নামটি যত মিষ্টি, তার চেয়ে বেশি সুন্দর চা-বাগান, ছোটো জনপদ আর পাহাড়ঘেরা এই অঞ্চল । শিলিগুড়ি-দার্জিলিং বিকল্প পথে মিরিকের কিমি. সাতেক আগে সৌরেনির একাধিক মাথায় (চার থেকে পাঁচ হাজার ফিট উঁচু) নজরকাড়া দৃশ্যের আয়োজন । এক এক উচ্চতা থেকে রূপের নানা দিক ধরা দেয় । মনে হয়, কোনো শিল্পি পরম যত্নে সাজিয়ে দিয়েছে এমন করে ।আকর্ষক সব ঢাল বেয়ে সবুজ বুটিদার চা-বলয় বুঝি পিছলে নেমে আসেব ।পশরা মেলা বুগিয়ালের চেহারা বলে ভুল হয় কোথাও ।আর তার মাঝে কাটাকুটি খেলা পাকা পথের পাশে সারি দেওয়া দেবদারুর অবিশ্বাস্য কালচে-হরিৎ সূচিমুখ নকশিকাঁথার মা্ঠ তৈরি করে । টিলার বুক কেটে উঠে যাওয়া কাঁচা সরু চড়াই সম্পূর্ণ করে প্রসাধন ।

এমন দুর্লভ রূপসী বাগানের নামকরণ হয়েছে সৈার গোত্রের গাছ আর (উপত্যকার) রানী শব্দ জুড়ে । দার্জিলিঙে চা পত্তনের সময় ইংরেজরা নেপালি সর্দার ডকমন রাইকে বিশাল জমি দেয় যার এলাকা সৌরেনি, ফুগুরি আর সামরিপানি জুড়ে ছিল । তার ছেলে ভউজিৎ রাই সৌরেনি নতুন চারা লাগিয়ে চা বাগন তৈরি করে ওই সৈার গাছ লাগায় । পরে অবশ্য আরও হাতবদল হয়েছে । যত্নে লালিত ঝকঝকে উপত্যকা প্রশংসনীয়। তবে এর মনোহরতম শীর্ষে সৌরেনি-টিংলং ভিউ পয়েন্ট হতবাক করে দেয়, যা সারা উত্তর-পূর্ব ভারতে বিখ্যাত । কাছাকাছি থাকা মেচি, ফুগুরি, টিংলিং, সিঙবুল্লি, গয়াবাড়ি আর মিলিকথং চাবাগানও চোখ টানে । কিন্তু এই ভিউ পয়েন্ট অতুলনীয়, এক ঝাঁকুনি দিয়ে তিন দিকের চায়ের সাথে আলাপচারিতায় মজিয়ে দেয় । ওই রকম এলোমেলো দেবদারুশোভিত রাস্তাও যেন ঝুলনের খেলাঘর হয়ে ওঠে । অন্য দিকে পাহাড়ের দেওয়াল জুড়ে গাছেদের সারি দোলে । সৌরেনি বস্ত অঞ্চলে বেশ কিছু কমলালেবুর বাগান আছে ।

সৌরেনির উঁচু শিখর থেকে এক দিকে কার্শিয়াং আর উত্তরবঙ্গের সমতল দেখা যায় । অন্য প্রান্তে মাথা তুলে থাকে নেপালের শৈলমালা, বিশেষ করে অন্তুদারার পরিচিত চূড়া দেখা যায় ।

তরাই অঞ্চলের এত চা-সাম্রাজ্যের মাঝে সৌরেনি কেন অনন্য, তার উত্তর লুকিয়ে আছে এর ভূসংস্থানে । পাহাড়ের ঢাল আছে কিন্তু তা বেশি উঁচু নয়। জনপদ দূরে বলে নির্জনতা বাড়িত মাত্রা আনে ।এখানে চা ঝোপের মাঝে মেঠো শুঁড়িপথে বা ঢেউ খেলানো সড়ক ধরে হেঁটে আকণ্ঠ নিসর্গ-সুধা পান করা যায় । আবার যে কোনো মাথা থেকে চারপাশের সব ধরা দেয় । অনেক নিচে কুয়োর মতো জমিতে গ্রামের ছবি থেকে শুরু করে পাহাড়ের মাথার রোঁয়ার মতো পাইনের সারি চা-মসৃণ চালচিত্রে বৈচিত্র আনে ।

টিংলিং চূড়া কিছুক্ষণের আরাম দেবে বলে চা-কফি-খাবারের দোকান ও রেস্তোরাঁ বসিয়েছে । বসে রাজকীয় ভাবে চারদিকের বৈশিষ্ট্য আরেক বার বিচার করে চোখ ও ক্যামেরা ভরে নমুনা নেওয়া যায় । স্থানীয় শিল্পীর তৈরি কাঠের খেলনার পশরা থাকে । রেস্তোরাঁর ছাদের অবারিত বারান্দার মাহাত্ম্য দেখে এক পর্যটক বলে, এ যে ব্যবিলনের শূন্য উদ্যান! নিচে ডান দিকে চাবাগানের দপ্তর ও পরে অপূর্ব এক অতিথিশালা । অন্যান্য চাবাগেও থাকার ভালো ব্যবস্থা আছে ।

পাশের ফুগুরি বাগানে ঘাসজমিতে বসে বিশ্রাম নেবার সময় খুব কাছে একটি বার্কিং ডিয়ার চলে আসে । মানুষ দেখে সে ভয়ে ডাক পেড়ে ছন্দোময় লাফে নিমেষে দিগন্তে গিয়ে ফিরে দেখার সময় গাছের পাতার মতো কান দোলায় । আগাছা তোলা একা মহিলা চা-কর্মী বলে, মাঝেমধ্যে ময়ূরও দেখা যায় । চায়ের মাঝে পায়ে চলার ফাঁক দিয়ে এগিয়ে ঢালের মাথায় পৌঁছলে আরেক দিগন্ত খুলে যায় । বিদ্যুতের দানব-মিনার মেঘের মাথা ঝাঁকিয়ে দিলে কাদম্বিনীর মুখ কালো হয়ে যায় । তখন এপারে তুমি ছায়া, ওপারে আমি মিহিরকিরণ। মাঝে পথনদীতে দুধসাদা গাড়ি বহে রে! দেশ-বিদেশ একাকার হয়ে যায় । মিরিকে তো অনেকেই বেড়াতে যান, এক রাত এখানে কাটিয়ে গেলে অভিজ্ঞতার ঝুলিতে অদলবদল হয়ে যাবে ।
এমন সব প্রতি পলে পাল্টে যাওয়া প্রচ্ছদের পেটেন্ট নেওয়া বলে সৌরেনি এত মোহিনী ।


  • Tags:

Read by: 156 views

❤ Support Us
Advertisement
Advertisement
শিবভোলার দেশ শিবখোলা স | ফ | র | না | মা

শিবভোলার দেশ শিবখোলা

শিবখোলা পৌঁছলে শিলিগুড়ির অত কাছের কোন জায়গা বলে মনে হয় না।যেন অন্তবিহীন দূরত্ব পেরিয়ে একান্ত রেহাই পাবার পরিসর মিলে গেছে।

মিরিক,পাইনের লিরিকাল সুমেন্দু সফরনামা
বাড়িয়ে দিন বন্ধুত্বের হাত স | হ | জ | পা | ঠ হযবরল
error: Content is protected !!